31 C
Bangladesh
Sunday, September 19, 2021
Google search engine

সর্বশেষ পোস্ট

তরুণ উদ্যোক্তার প্রচেষ্টায় বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ছে দেশীয় শিল্পকর্ম

দ্বীন মোহাম্মাদ সাব্বির:

বাংলাদেশে উৎপাদিত চিত্রকর্ম, ক্রাফট ও হস্তশিল্পের মত নানা শিল্পকর্মগুলো একটি অনলাইন বিক্রয়মাধ্যমে বিশ্বব্যাপি ছড়িয়ে দিতে ‘পেইন্টবিট’ নামের একটি শিল্প ভিত্তিক অনলাইন আন্তর্জাতিক প্রোডাক্ট আউটলেট মার্কেটপ্লেস এর কাজ শুরু করেছে সিরাজগঞ্জের এক তরূণ উদ্যেক্তা মেহেদী হাসান আশিক। তার এমন উদ্যোগে এদেশের ঐহিতিহ্যসমৃদ্ধ শিল্পকর্মগুলো বিশ্বব্যাপী দেশ ও দেশের সংস্কৃতিকে সমাদৃত করবে। একইসাথে দেশের পিছিয়ে পড়া শিল্পী ও কলাকুশলীদের আর্থসামাজিক উন্নয়নেও গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখবে। এক বছর আগে মেহেদী হাসান আশিকের নেতৃত্বে কয়েকজন তরূণের হাত ধরে যাত্রা শুরু করেছে ‘পেইন্টবিট আর্ট’ নামের এই অনলাইন মার্কেটপ্লেস প্লাটফর্মটি। এই তরুণদের নিজস্ব পরিকল্পনা ও বিনিয়োগের মধ্য দিয়ে কাজ করে যাচ্ছে paintbeatart.com প্রতিষ্ঠানটি। এ প্রসংগে একটি সাক্ষাৎকার দিয়েছেন পেইন্টবিটের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নিবার্হী মেহেদী হাসান আশিক

মেহেদী হাসান আশিক সিরাজগঞ্জ শহরের গোসালা এলাকার বসিন্দা। বি. এল. সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ও মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজ থেকে পড়াশোনা শেষ করে বর্তমানে দেশের বাইরের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে সে অর্থনীতি নিয়ে লেখাপড়া করছেন। তিনি একাধারে একজন উদ্যোক্তা, লেখক ও শিল্পপ্রেমী এক স্বপ্নবাজ যুবক। সে গবেষণা, উদ্যোগ, দারিদ্র্য বিমোচন, নারীর ক্ষমতায়ন ও সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে কাজ করে।

সিরাজগঞ্জের যমুনাপাড়ে বেড়ে ওঠা এই যুবক স্বপ্ন দেখে আকাশ ছোঁয়ার। এ প্রসংগে একটি সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, আমাদের দেশের শিল্পীদের শিল্পকর্ম বিক্রির জন্য তেমন কোন ভালো সুযোগ নেই। সুযোগ না থাকার কারনে তারা তাদের করা আর্টওয়ার্কের উপযুক্ত মুল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। এতে করে শিল্পকর্মে আগ্রহ হারচ্ছেন অনেকেই। ব্যহত হচ্ছে শিল্পযাত্রা। অথচ বিশ্বব্যাপী শিল্পকর্মের চাহিদা বেড়েই চলছে। তাই এমন একটি প্লাটফর্মের প্রয়োজন ছিল যেখানে শিল্পী নিজে শপ খুলে স্বাধীনভাবে তার শিল্পকর্ম বিক্রি করতে পারবে।এই ভাবনাগুলো থেকেই আমরা এই পেইন্টবিটের যাত্রা শুরু করেছি। এখান থেকে দেশ বিদেশের যেকোন ক্রেতা মূল্য পরিশোধ পূর্বক এই শিল্পকর্মগুলো ক্রয়-বিক্রয় করতে পারবে। এবং ইন্টারন্যাশনাল পেমেন্ট গেটওয়েও এখানে সংযুক্ত আছে। যে কোন শিল্পীর জন্যই এটা একটা বিরাট সুযোগ। একটি অনলাইন শপ খুলে মূহুর্তেই তারা তাদের শিল্পকর্মগুলোকে আপলোড করতে পারবেন। এরপর কন্টেন্ট রাইটিং, এডিটিং, ডিজিটাল মার্কেটিং, পেমেন্ট ও কাস্টমার ম্যানেজমেন্ট থেকে শুরু করে ক্রেতার ঘরে শিল্পকর্মগুলো পৌঁছে দেয়ার যাবতীয় কাজ আমরাই সম্পাদন করছি।

তিনি আরও বলেন আমাদের উদ্দেশ্য, দেশের শিল্পকর্ম বিশ্বপব্যপী ছড়িয়ে দেওয়া, দেশের মাঝে একটি শিল্পসম্মত বাজার তৈরী করা, পরিবেশ বান্ধব পণ্যের ব্যবহার বাড়ানো, পাটপণ্য গুলোকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দেয়া এবং সমস্ত শিল্পীদের একটি প্লাটফর্মে নিয়ে আসা।আরও একটি উদ্দেশ্য হলো নারীর ক্ষমতায়ন সুপ্রতিষ্ঠিত করা। আমাদের দেশের অনেক নারী রয়েছেন যারা নকশিকাঁথা, হস্তশিল্প, বুটিক, শীতলপাটির মত অনেক শিল্পসমৃদ্ধ কাজ করেন। কিন্তু গৃহীনীরা অনেক ক্ষেত্রেই শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হন। এজন্য তারা জানেন না কিভাবে ঘরে বসে আয় করা যায়, তাদেও পণ্যগুলো কিভাবে দেশে ও দেশের বাহিয়ে ছড়িয়ে দেওয়া যায়। আমরা পেইন্টবিটের মাধ্যমে তাদের পণ্যগুলোকে বিক্রির মধ্য দিয়ে আয় বৃদ্ধিতে কাজ করতে পারব। একজন নারী যখন টাকা আয় করবে তা দিয়ে তার সন্তানদের লেখাপড়া করাতে পারবেন। এভাবে অন্যের ওপর নির্ভরশীল না হয়েও স্ব-নির্ভর হয়ে  জীবন-যাপন করতে পারবেন। এভাবে আমরা নারীর ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করতে পারব। আমাদের ওয়েবসাইট থেকে যেকোন ধরনের পেইন্টিং,ক্যালিগ্রাফি, স্কেচ, ক্রাফট, হস্তনির্মিত গহনা, হ্যান্ড পেইন্টেড ড্রেস, পাট-পণ্য, ডিজিটাল আর্ট, ফটোগ্রাফি, ক্রয় বিক্রয় করা হয়। চাইলে যে কেউ অর্ডার দিয়ে কাস্টোমাইজড চিত্রকর্ম কিংবা স্কেচও করিয়ে নিতে পারেন।

মেহেদী বলেন, শুরু থেকে আজ অবদি আমাদের চলার পথে অনেক বাঁধা পেরিয়ে নানা সমস্যা সমাধান করেই সামনে এগুতে হয়েছে। শুরু থেকেই একটি শিল্প নিয়ে বিপ্লব করার স্বপ্ন নিয়ে আমরা এগুচ্ছিলাম। এখন  আমরা সে স্বপ্ন পুরণের পথে হাটছি। স্বপ্ন পুরনের যে আনন্দ তা আমরা এখন কিছুটা উপলব্ধি করতে পারছি। আমাদের ট্রেড লাইসেন্স, ট্যাক্স আইডি, ইন্টারন্যাশনাল পেমেন্ট গেটওয়ে সহ প্রায় সব ধরনের প্রস্তুতি এখন সম্পন্ন হয়েছে। আমাদের পেইন্টবিটে কয়েক লক্ষ টাকা বিনিয়োগ করে আমরা কাজ করছি।

সবশেষে এই উদ্যোক্তা জানিয়েছেন কোন ধরনের পৃষ্ঠপোষকতা পেলে কিংবা সরকারের সংশ্লিষ্ট শাখা থেকে যদি কোন ধরনের সহযোগিতা করা হয় তাহলে তাদের উদ্যোগ বাস্তবায়নে সহায়ক হবে।

তরুণদের নিজস্ব পরিকল্পনা ও বিনিয়োগের মধ্য দিয়ে দেশের শিল্পকর্ম বিশ্বপব্যপী ছড়িয়ে দেওয়া, নারীর ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করা ও পরিবেশবান্ধব পণ্যের ব্যবহার বাড়ানোর মধ্য দিয়ে দেশের মাঝে একটি শিল্পসম্মত বাজার তৈরী করতে যে উদ্যোগটি তারা নিয়েছে তা নিয়ে বিশাল সম্ভাবনার দাড় উন্মোচিত হবে বলে মনে করছেন অনেকেই। এক সময় বিশ্ব বাজারে নেতৃত্ব দেবে আমারে দেশীয় সংস্কৃতি ও বিশ্বের বুকে মাথা উচু করে দাড়াবে আমাদের ঐতিহ্যে লালিত শিল্প পণ্যগুলো। সেই যাত্রায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে পেইন্টবিট আর্ট।

লেটেস্ট পোষ্ট

ফেয়ার & লেডি

spot_img

অবশ্যই পড়ুন

Stay in touch

To be updated with all the latest news, offers and special announcements.